শারিরীক শিক্ষা ও স্বাস্থ্য

শারীরিক শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা কেনো।

শারীরিক শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা কেনো। শারীরিক শিক্ষা বলতে শরীর বিষয়ক শিক্ষা যেমন- সুস্থ থাকার জন্য বিভিন্ন রকম ব্যায়াম করা বুঝায়। মানুষের সুস্থভাবে জীবন-যাপন করার ক্ষেত্রে শারীরিক শিক্ষা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে। প্রকৃতপক্ষে শারীরিক শিক্ষা বা ব্যায়াম অনুশীলন ছাড়া মানুষ সুস্থভাবে বাঁচতে পারে না। এই আর্টিকেলে আমরা শারীরিক শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে আলোচনা করব।

শারীরিক শিক্ষার প্রয়োজন হলো মানুষের শারীরিক মানসিক শিক্ষাগত সামাজিক ও নৈতিক উন্নয়নের জন্য। শারীরিক শিক্ষা মানুষকে সুস্থ সহযোগী নৈতিক, সৃজনশীল ও সুশিক্ষিত করে। শারীরিক শিক্ষা মানুষের জীবনের গুণমান ও কর্মক্ষমতা বাড়ায়। শারীরিক শিক্ষা মানুষের মনের চাপ, উদ্বেগ ডিপ্রেশন নিদ্রাহীনতা ও অন্যান্য মানসিক সমস্যা কমে যায়। শারীরিক শিক্ষা মানুষের আত্মবিশ্বাস স্বাধীনতা সম্মান সহনশীলতা ও সম্পর্ক বিকাশে সাহায্য করে।

শারীরিক শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা কেনো।

শারীরিক শিক্ষা প্রয়োজন কারণ মানসিক স্বাস্থ্য ও সুখ বৃদ্ধি করে। ব্যায়াম করলে শরীর থেকে এন্ডরফিন নামের একটি হরমোন মুক্তি হয়। যা মানুষকে আনন্দিত করে। এছাড়াও ব্যায়াম করলে মানুষের মনের চাপ উদ্বেগ ডিপ্রেশন ও অন্যান্য মানসিক সমস্যা কমে যায়। ব্যায়াম করলে মানুষের আত্মবিশ্বাস, স্বাধীনতা সম্মান সহনশীলতা ও সম্পর্ক বিকাশে সাহায্য করে।

শারীরিক শিক্ষা শিক্ষার গুণমান ও কর্মক্ষমতা বাড়ায়। ব্যায়াম করলে মানুষের মস্তিষ্কের কাজ উন্নত হয। যা তাকে শিক্ষার ক্ষেত্রে সহায়ক হয়। ব্যায়াম করলে মানুষের স্মৃতি ধারণা সমস্যা সমাধান, নির্ণয়ক্ষমতা ও অন্যান্য মানসিক দক্ষতা বাড়ে। এছাড়াও ব্যায়াম করলে মানুষের শারীরিক ও মানসিক শান্তি থাকে। যা তাকে শিক্ষার কাজে আরো নিয়মিত ও নিষ্ঠাবান করে।

শারীরিক শিক্ষা সামাজিক ও নৈতিক মূল্য শিখায়। শারীরিক শিক্ষার অন্তর্ভুক্ত বিভিন্ন খেলা ক্রীড়া যোগ নৃত্য ও অন্যান্য কার্যক্রম মানুষকে সামাজিক ও নৈতিক মূল্য শিখায়। এই কার্যক্রমগুলো মানুষকে দলবদ্ধতা সহযোগিতা ন্যায়বিচার সমানতা শুভেচ্ছা সদাচার শীল আচরণ নিয়ম মানা ও অন্যান্য গুণাবলী শিখায়।

সুস্থ জীবনের জন্য শারীরিক ভাবে কি করা উচিৎ।

প্রতিদিন নিয়মিত ব্যায়াম করুন। ব্যায়াম আপনার শরীরের রক্তচাপ রক্তশর্করা কোলেস্টেরল ওজন হৃদরোগ ডায়াবেটিস ও অন্যান্য রোগের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। ব্যায়াম আপনার মানসিক স্বাস্থ্যকেও উন্নত করে মনের চাপ বিরক্তি, ডিপ্রেশন কমায়। ব্যায়াম আপনার শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় ও আপনাকে শক্তিশালী করে।

আপনি যে কোনো ধরনের ব্যায়াম করতে পারেন। যেমন হাঁটা দৌড়া সাইকেল চালানো সাঁতার কাটা, জিমে যাওয়া যোগা করা ইত্যাদি। আপনার পছন্দের এবং আপনার শরীরের অনুযায়ী ব্যায়াম নির্বাচন করুন। প্রতিদিন কমপক্ষে ৩০ মিনিট ব্যায়াম করার চেষ্টা করুন। এতে বালান্স থিম থাকবে।

স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ করুন। আপনার খাবারে ফল শাকসবজি ডাল মাছ মাংস ডিম দুধ পানি ও অন্যান্য পুষ্টিকর খাদ্য থাকতে হবে। এই খাদ্যগুলো আপনার শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় ভিটামিন মিনারেল প্রোটিন কার্বোহাইড্রেট ফাইবার ও অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট সরবরাহ করে। এই খাদ্যগুলো আপনার শরীরের ক্রিয়াকলাপকে নিয়ন্ত্রণে রাখে, শরীরের ভারসাম্য বজায় রাখে ও শরীরের কোষগুলোর সুস্থ রক্ষা করে।

আপনার খাবারে অতিরিক্ত চর্বি চিনি লবণ ভেজাল। কোলা কফি অ্যালকোহল ও অন্যান্য অস্বাস্থ্যকর খাদ্য থাকা উচিৎ নয়। এই খাদ্যগুলো আপনার শরীরের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। এই খাদ্যগুলো আপনার শরীরের ওজন বাড়াতে রক্তচাপ বাড়াতে রক্তশর্করা বাড়াতে কোলেস্টেরল বাড়াতে হৃদরোগ ডায়াবেটিস ক্যানসার। ও সন্ধির রোগ পাচনতন্ত্রের সমস্যা ও অন্যান্য রোগের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

শারীরিক ভাবে ঠিক থাকার ঘুমের মাত্র।

ঘুম হলো শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কারক। ঘুম শরীরকে চাঙ্গা রাখে ও মানসিক চাপ কমায়। কিন্তু কম ঘুমানোর মতোই বেশি ঘুমানোটাও স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। তাই প্রতিদিন পরিমিত ঘুম নিতে হবে। কিন্তু প্রতিটি বয়সের মানুষের জন্য ঘুমের চাহিদা আলাদা আলাদা।

আরোও পড়ুন: জীবনের জন্য খেলাধুলা | শারিরীক শিক্ষা ও স্বাস্থ্য।

যেমন শিশুদের একটু বেশি ঘুমাতে হয় প্রবীণ ও প্রাপ্তবয়স্কদের তুলনায়। বয়স অনুযায়ী প্রতিদিন কোন মানুষের কতটুকু ঘুমানো জরুরি এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল স্লিপ ফাউন্ডেশন।

এই ঘুমের চাহিদা হলো গড় মাত্রা। কিন্তু এটি ব্যক্তি থেকে ব্যক্তি ভিন্ন হতে পারে। কেউ কম ঘুমেও সুস্থ থাকতে পারেন, আবার কেউ বেশি ঘুমেও সুস্থ থাকতে পারেন। এটি নিজের শরীরের উপর নির্ভর করে। শুধু ঘুমের পরিমাণ নয়, ঘুমের মান ও নিয়ম নিয়ম স্বাস্থ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button